আন্তর্জাতিকএশিয়াব্রেকিংস্লাইডার

মাহাথির মোহাম্মদের জয়ের রহস্য কী

মালয়েশিয়ার ইতিহাসে সবচেয়ে বিস্ময়কর নির্বাচনী বিজয় পেয়েছেন ৯২ বছরের মাহাথির মোহাম্মদ। কীভাবে তা সম্ভব হলো আর এর অর্থই বা কী?

প্রথমবারের মতো পরিবর্তন

১৯৫৭ সালে ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসন অবসানের পর থেকে বরাবরই বারিসান ন্যাশানাল জোট মালয়েশিয়ার শাসনক্ষমতায় থেকেছে।

এই শাসক জোটের জনপ্রিয়তায় ভাঁটা পড়তে শুরু করলেও, বেশিরভাগ মানুষই কিন্তু ধারণা করেছিল প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক আরেক মেয়াদের জন্য আবার জয়ী হবেন।

কিন্তু সরকারি গণনায় দেখা যাচ্ছে, এই জোট আসলে জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় যথেষ্ট আসন সংসদে পায়নি, যা পর্যবেক্ষকদের রীতিমত বিস্মিত করেছে।

এই জোট হেরে গেল কেন?

যেমনটা সচরাচর হয়ে থাকে, এক্ষেত্রেও কারণ মূলত অর্থনীতি। জীবনধারণের ব্যয় মালয়েশিয়ায় অত্যধিক বেড়ে গেছে এবং জিনিসপত্র ও বিভিন্ন সেবার ওপর সরকার নতুন নতুন কর আরোপ করেছে- যা কখনই জনপ্রিয় নয়।

তবে সাম্প্রতিক কয়েক বছরে মালয়েশিয়ার রাজনীতিতে সবচেয়ে আলোচিত বিষয় হলো দুর্নীতি। নাজিব রাজাক বিদেশি বিনিয়োগ উৎসাহিত করতে একটি বিশেষ তহবিল গঠন করেছেন। কিন্তু এই তহবিলের সাথে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তারা এই তহবিল ব্যবহার করে ব্যক্তিগত স্বার্থসিদ্ধি করছে।

নাজিব রাজাকের বিরুদ্ধে ৭০ কোটি ডলার পকেটস্থ করার অভিযোগও উঠেছে। তবে সবচেয়ে বড় কথা নাজিব রাজাক এ অভিযোগ বরাবর অস্বীকার করে এসেছেন এবং নিজের দেশে কোনোরকম অনিয়মের অভিযোগ থেকে তাকে অব্যাহতিও দেয়া হয়েছে। কিন্তু আমেরিকাসহ বিভিন্ন দেশে তার ও এই তহবিলের বিরুদ্ধে অভিযোগে তদন্ত চলছে, যা বাইরে মালয়েশিয়ার ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে।

সেখানেই বাজিমাৎ করেছেন মাহাথির মোহাম্মদ

মাহাথির মোহাম্মদ অতীতেও প্রধানমন্ত্রীর এবং বারিসান ন্যাশানালের প্রধানের দায়িত্ব পালন করেছেন। ২২ বছর তিনি ক্ষমতায় ছিলেন – ১৯৮১ থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত। ২০০৩-এ তিনি ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়ান।

কিন্তু দুই বছর আগে সবাইকে তিনি হতবাক করে দিয়ে বলেন, দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে তিনি এতটাই ”বিব্রত” যে তার পুরনো দল ছেড়ে দিচ্ছেন এবং বিরোধী জোট পাকাতান হারাপানে তিনি যোগ দিচ্ছেন। পাকাতান হারাপানের অর্থ ”আশার জোট”।

এরপর জানুয়ারি মাসে জানান, তিনি একসময় তারই হাতে গড়া নাজিব রাজাকের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। তিনি আরো বলেন, জয়ের ব্যাপারে তিনি আস্থাবান ”যদি না নাজিব কারচুপি করে”।

নির্বাচনের সময় বেশ কিছু কারচুপির অভিযোগও উঠেছে। লোকজন অভিযোগ করেছে, তারা ডাকে ভোট দেয়ার ব্যালট কাগজ বা পোস্টাল ব্যালটের কাগজ পায়নি এবং সমালোচকরা অভিযোগ করেছে কোনো কোনো নির্বাচনী কেন্দ্রে সরকার এমনভাবে ভোটে কারচুপি করেছে যাতে জয় নিশ্চিত হয়।

বিশ্ব জুড়ে ”ভুয়া খবর” নিয়ে যে হৈচৈ ও আতঙ্ক তৈরি হয়েছে মালয়েশিয়ার সরকার সেই উদ্বেগে সামিল হয়ে দ্রুত নতুন একটি আইন প্রণয়ন করেছে, যার আওতায় এধরনের খবর ”শেয়ার” করলে কারাদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

কেউ কেউ মনে করছে, সরকারের বিরুদ্ধে সমালোচনা বন্ধের এটা একটা পথ। মাহাথিরের বিরুদ্ধে এই আইনে অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে।

এখন কী ঘটতে পারে?

আজ বৃহস্পতিবার নাজিব বলেছেন তিনি ”জনগণের রায়” মেনে নিয়েছেন। কিন্তু একইসাথে তিনি একথাও বলেছেন যে, পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী যিনি হবেন তাকে সংসদ সদস্যদের আস্থা অর্জন করতে হবে।

মাহাথির অবশ্যই সেই আস্থা অর্জনে সফল হবেন। তবে তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন দুই বছর পর তিনি ক্ষমতা আর কারো হাতে তুলে দেবেন। কারণ? – তার বয়স এখন ৯২!

আর সেটাও মালয়েশিয়ার রাজনীতির ক্ষেত্রে আরেকটা চমক সৃষ্টি করতে পারে। কারণ সেক্ষেত্রে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার বড় ধরনের সম্ভাবনা রয়েছে আনোয়ার ইব্রাহীমের- যিনি মাহাথিরের সাবেক ঘনিষ্ঠ ছিলেন এবং যাকে ক্ষমতা থেকে সরিয়েছিলেন মাহাথির।

সমকামীতার অভিযোগে আনোয়ার ইব্রাহীম বর্তমানে কারাবাস করছেন।

মাহাথির মোহাম্মদ : চিকিৎসক থেকে প্রধানমন্ত্রী

৯২ বছর বয়সী মাহাথির মোহাম্মদ আবার মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন। ২২ বছর ক্ষমতায় থাকার পরে ২০০৩ সালে তিনি অবসরে গিয়েছিলেন। কিন্তু তার ভাষায়, জীবনের সবচেয়ে বড় ভুল সংশোধন করার জন্য তিনি আবার রাজনীতিতে সক্রিয় হলেন।

শুধুমাত্র তার একসময়ের শিষ্য নাজিব রাজাককেই তিনি পরাজিত করেননি, তার দল ‘ইউনাইটেড মালয়িস ন্যাশনাল অর্গানাইজেশন’কে হারিয়ে এক সময়ের প্রতিপক্ষ পাকাতান হারাপান কোয়ালিশনের নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

মাহাথির মোহাম্মদ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী হিসাবে তিনি দুই বছর ক্ষমতায় থাকতে চান। এরপর তিনি কারাবন্দী নেতা আনোয়ার ইব্রাহিমের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করবেন।

মাহাথির মোহাম্মদের উত্থান

২১ বছর বয়সে রাজনীতি শুরু করেন মাহাথির মোহাম্মদ। তখন তিনি তার সাবেক দল ইউএমএসওতে যোগ দেন। যদিও পরবর্তী সাত বছর একজন চিকিৎসক হিসাবে তিনি প্রাকটিস অব্যাহত রাখেন।

১৯৬৪ সালে তিনি কেদাহ প্রদেশ থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। কিন্তু ১৯৬৯ সালে তিনি সেই আসনটি হারান আর দল থেকেও বহিষ্কৃত হন, কারণ তখনকার প্রধানমন্ত্রী টাঙ্কু আবদুল রহমানের সমালোচনা করে তিনি একটি প্রকাশ্য চিঠি লিখেছিলেন।

এরপর তিনি ‘মালয় ডিলেমা’ নামের একটি বিতর্কিত বই লেখেন। সেখানে তিনি মন্তব্য করেন, দেশটির মালয় জনগোষ্ঠীকে বঞ্চিত করা হচ্ছে এবং দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক হিসাবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

এটি দলের তরুণদের তার পক্ষে টেনে নিয়ে আসে এবং তাকে পুনরায় দলে ফেরত নেয়া হয়। ১৯৭৪ সালে তিনি পুনরায় নির্বাচিত হন এবং শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব পান। পরের চারবছরের মধ্যে তিনি ইউএমএমও দলের উপ নেতা নির্বাচিত হন।

১৯৮১ সালে তিনি প্রথম মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন।

তার শাসনামলে মালয়েশিয়া দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম অর্থনৈতিক শক্তিতে পরিণত হয়। যদিও তার বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের কিছু অভিযোগ আছে, কিন্তু অর্থনৈতিক সাফল্য তাকে মালয়েশিয়ায় অত্যন্ত জনপ্রিয় করে তোলে।

গণতন্ত্রের কালো অধ্যায়

বহু বিতর্কিত ইন্টারনাল সিকিউরিটি অ্যাক্টের আওতায় অনেক বিরোধী রাজনীতিবিদকে কারাগারে পাঠানো হয়।

১৯৯৮ সালে তার উপপ্রধানমন্ত্রী আনোয়ার ইব্রাহিমকে বরখাস্তের পর দুর্নীতি আর সমকামিতার অভিযোগে কারাগারে পাঠানো হয়।

পশ্চিমা দেশগুলো নিয়ে তার সমালোচনা বহির্বিশ্বেও তাকে আলোচিত করে তোলে।

প্রধানমন্ত্রী থেকে ২০০৩ সালের অক্টোবরে অবসরের সময় তিনি বলেন, ”আমি অসন্তুষ্ট…কারণ সফল হওয়ার জন্য আমি যেসব অর্জন করতে চেয়েছিলাম, তার সামান্যই অর্জন করতে পেরেছি।”

তবে অবসরের পরেও তিনি রাজনীতি থেকে দূরে সরে যাননি।

২০০৮ সালের নির্বাচনের দলের খারাপ ফলাফল জন্য তিনি তার উত্তরসূরি আবদুল্লাহ বাদাইর প্রকাশ্যে সমালোচনা করেন। আবদুল্লাহর পদত্যাগের পর নাজিব রাজাক ক্ষমতায় আসেন।

প্রথমদিকে নাজিব রাজাককে সমর্থন করলেও, দেশটির একটি বিনিয়োগ তহবিলে নাজিব রাজাকের দুর্নীতির অভিযোগ প্রকাশ পাওয়ার পর তা পাল্টে যায়।

এই দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকার ও পার্টির পক্ষ থেকে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য দলের নেতাকর্মীদের সমর্থন দাবি করেন মাহাথির মোহাম্মদ। কিন্তু সেখানে সাড়া না পাওয়ার পর ২০১৬ সালে তিনি এবং আরো কয়েকজন জ্যেষ্ঠ নেতা দল থেকে পদত্যাগ করেন এবং বিরোধী পক্ষে যোগ দেন।

এ বছরের জানুয়ারি মাসে তিনি নির্বাচনে অংশ নেয়ার ঘোষণা দেন।

বিরোধীদের মূল্যায়ন

অনেককে অবাক করে মাহাথির মোহাম্মদ স্বীকার করেছেন, তিনি জীবনে অনেক ভুল করেছেন, যার মধ্যে রয়েছে আনোয়ার ইব্রাহিমকে বরখাস্ত করা।

তবে আনোয়ার ইব্রাহিমের সাথে জোট বাধার পর তাকে এক নম্বর অভিনেতা বলে বিদ্রূপ করেছেন নাজিব রাজাক।

ক্ষমতায় থাকাকালীন সময় নিয়ে লেখা একটি বইয়ে সাবেক প্রধানমন্ত্রী আবদুল্লাহ বাদাই বলেছেন, ”মাহাথির তার নিজের পথেই চলেন এবং তিনি বিশ্বাস করেন, তার পথই একমাত্র পথ।”

এ সম্পর্কিত অন্যান্য সংবাদ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Close